AmarShaj.Com
ঘরে বসেই নতুন কিছুর অভিজ্ঞতা
বাংলায় লেখালেখি করার জন্য উন্মুক্ত এক জায়গার নাম আমারসাজ.কম

ছেলেদের মুখের ব্রণের জন্য কি করা উচিত?

প্রকাশিত হয়েছে 02-Jul-2015
লিখেছেন : Bipul

ব্রণ হওয়ার কারণঃ সাধারণত
বয়ঃসকিালে অথবা হরমোনের
প্রভাবে ব্রণ হয়ে থাকে। অনেক
ক্ষেত্রে বংশগত প্রভাবেও ব্রণ
কমবেশি হয়ে থাকে। সাধারণত ১৩
থেকে ১৯ বছর বয়সে এটি হয়। এ বয়সেই
কমবেশি ব্রণ হয়ে থাকে। তবে ২০ বছর
বয়সের পর থেকে এগুলো
স্বাভাবিকভাবেই আস্তে আস্তে
কমতে থাকে। যাদের মুখ অতিরিক্ত
তৈলাক্ত, তাদের ব্রণ তুলনামূলকভাবে
বেশি হয়।
ব্রণ থেকে মুক্তির উপায়ঃ কিছু নিয়ম
অবলম্বন করলেই ব্রণ থেকে রক্ষা
পাওয়া সম্ভব। অনেকের ধারণা,
কোনো বিশেষ খাবার খেলেই
ব্রণ হয়ে থাকে। আসলে এটি ঠিক নয়।
কোনো খাবার খেলে যদি ব্রণের
সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে থাকে তবে সে
খাবারটি বাদ দিতে হবে। তবে প্রচুর
ফলমূল ও পানি খেতে হবে। মুখে
বেশি ব্রণ থাকলে রাসায়নিক
কোনো উপাদান বা কসমেটিক
ব্যবহার করা ঠিক নয়, যথাসম্ভব
প্রাকৃতিক বা হারবাল জিনিস ব্যবহার
করা ভালো। কারণ এতে কোনো
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। অধিকাংশ
ব্রণ নিজস্ব পরীক্ষার মাধ্যমে সেরে
ফেলা সম্ভব।
ব্রণ প্রতিরোধে কিছু উপায়ঃ মূলত
ব্রণের জন্য সবচেয়ে বড় ওষুধ হলো
অপেক্ষা করা। ব্রণ নিয়ে কখনোই
বেশি চিন্তা করবেন না। ব্রণ দু-একটা
হবে আবার একাই চলে যাবে।
অতিরিক্ত ব্রণ হলে একটা চিন্তার
বিষয়। তবে নিচের পরামর্শগুলো
অবশ্যই মনে রাখা প্রয়োজন।
? ত্বক পরিষ্কার রাখুন। মুখে ভালো
সাবান মেখে দু-এক মিনিট রাখুন।
পরে আস্তে আস্তে পরিষ্কার করুন।
? অ্যাসট্রিনজেন্ট লোশন বা ফেস
স্ক্রাব ব্যবহার করুন।
? প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন।
দৈনিক ৮ থেকে ১০ গ্লাস।
? ত্বকে কোনো রকম অত্যাচার
করবেন না এবং হাত লাগাবেন না,
ত্বক কুচকাবেন না, খামচাবেন না,
গোটা খোঁটাখুঁটি করবেন না।
গোটা খুঁটলে হাতের জীবাণু
থেকে ইনফেকশন হয়, ফলে দাগ পড়ে যা
সহজে সারে না। এ ছাড়া ত্বকে
আরো বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিতে
পারে।
শরীরের ঘাম দ্রুত মুছে ফেলুন।
? ওয়াটার বেজড মেকআপ ব্যবহার করুন।
তৈলাক্ত ক্রিম, লোশন বা মেকআপ
ব্যবহার করবেন না ।
? প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ
নিন।

[সংগ্রহ কারক: আমারসাজ.কম]

ধন্যবাদ(159)

প্রকাশিত হয়েছে 02-Jul-2015
লিখেছেন : Bipul

আমি হারতে চাই না হয়তো
তাই বারে বারে পরাজিত । আর
অল্পতেই বিশ্বাস করতে মন চায় - “
বিশ্বাসে মিলায় বস্তু তর্কে বহুদুর ”
পন্ডিত
০ ৬ শেয়ার ১
রিয়াসাদ রিয়ন যা ইচ্ছা মনে করতে
পারেন
জ্ঞানী
০ ১ শেয়ার ০
দীপ মজুমদার আমি কেও না।
পন্ডিত
০ ০ শেয়ার ০
Arifskyhabib
গুণী
০ ০ শেয়ার ০
ব্রণ হওয়ার কারণঃ সাধারণত
বয়ঃসকিালে অথবা হরমোনের
প্রভাবে ব্রণ হয়ে থাকে। অনেক
ক্ষেত্রে বংশগত প্রভাবেও ব্রণ
কমবেশি হয়ে থাকে। সাধারণত ১৩
থেকে ১৯ বছর বয়সে এটি হয়। এ বয়সেই
কমবেশি ব্রণ হয়ে থাকে। তবে ২০ বছর
বয়সের পর থেকে এগুলো
স্বাভাবিকভাবেই আস্তে আস্তে
কমতে থাকে। যাদের মুখ অতিরিক্ত
তৈলাক্ত, তাদের ব্রণ তুলনামূলকভাবে
বেশি হয়।
ব্রণ থেকে মুক্তির উপায়ঃ কিছু নিয়ম
অবলম্বন করলেই ব্রণ থেকে রক্ষা
পাওয়া সম্ভব। অনেকের ধারণা,
কোনো বিশেষ খাবার খেলেই
ব্রণ হয়ে থাকে। আসলে এটি ঠিক নয়।
কোনো খাবার খেলে যদি ব্রণের
সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে থাকে তবে সে
খাবারটি বাদ দিতে হবে। তবে প্রচুর
ফলমূল ও পানি খেতে হবে। মুখে
বেশি ব্রণ থাকলে রাসায়নিক
কোনো উপাদান বা কসমেটিক
ব্যবহার করা ঠিক নয়, যথাসম্ভব
প্রাকৃতিক বা হারবাল জিনিস ব্যবহার
করা ভালো। কারণ এতে কোনো
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। অধিকাংশ
ব্রণ নিজস্ব পরীক্ষার মাধ্যমে সেরে
ফেলা সম্ভব।
ব্রণ প্রতিরোধে কিছু উপায়ঃ মূলত
ব্রণের জন্য সবচেয়ে বড় ওষুধ হলো
অপেক্ষা করা। ব্রণ নিয়ে কখনোই
বেশি চিন্তা করবেন না। ব্রণ দু-একটা
হবে আবার একাই চলে যাবে।
অতিরিক্ত ব্রণ হলে একটা চিন্তার
বিষয়। তবে নিচের পরামর্শগুলো
অবশ্যই মনে রাখা প্রয়োজন।
? ত্বক পরিষ্কার রাখুন। মুখে ভালো
সাবান মেখে দু-এক মিনিট রাখুন।
পরে আস্তে আস্তে পরিষ্কার করুন।
? অ্যাসট্রিনজেন্ট লোশন বা ফেস
স্ক্রাব ব্যবহার করুন।
? প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন।
দৈনিক ৮ থেকে ১০ গ্লাস।
? ত্বকে কোনো রকম অত্যাচার
করবেন না এবং হাত লাগাবেন না,
ত্বক কুচকাবেন না, খামচাবেন না,
গোটা খোঁটাখুঁটি করবেন না।
গোটা খুঁটলে হাতের জীবাণু
থেকে ইনফেকশন হয়, ফলে দাগ পড়ে যা
সহজে সারে না। এ ছাড়া ত্বকে
আরো বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিতে
পারে।
শরীরের ঘাম দ্রুত মুছে ফেলুন।
? ওয়াটার বেজড মেকআপ ব্যবহার করুন।
তৈলাক্ত ক্রিম, লোশন বা মেকআপ
ব্যবহার করবেন না ।
? প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ
নিন।
মন্তব্য (১)
নিয়মিত ত্বক পরিস্কার করে ত্বকের
ধরণ অনুযায়ী ভাল ব্রান্ডের ফেসওয়াস
ব্যবহার করতে পারেন।মুখের কোমলতা
ফিরিয়ে আনতে সপ্তাহে একদিন
স্ক্রাব করুন।ত্বকে ব্রণ বা এলার্জি
সমস্যা থাকলে ভাল স্কীন
স্পেশালিস্ট এর সাথে যোগাযোগ
করুন। ব্রণে হাত লাগাবেন না বা
চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন
এন্টিবায়োটিক ব্যবহার করবেন না।
সাধারনত ব্রণের দাগ এমনি এমনি
সেরে যায়।যদি খুব বেশি ব্রণের দাগ
দেখা দেয় তবে সেক্ষেত্রে ডাবের
পানি ব্যবহার করূন।প্রতিদিন ২ বার
ডাবের পানিতে তুলা ভিজিয়ে মুখ
মুছে নিন।১০ মিনিট অপেক্ষা করুন
তারপর স্বাভাবিক পানি দিয়ে মুখ
ধুয়ে ফেলুন।নিয়মিত ব্যবহার করলে
তফাৎটা নিজেই অনুভব করবেন।
ভাজাপোড়া ও তেল জাতীয় খাবার
পরিহার করুন।বেশি বেশি পানি পান
করুন।চিন্তামুক্ত থাকার চেষ্টা করুন ও
নিয়মিত ঘুমান।

[সংগ্রহ কারক: আমারসাজ.কম]

ধন্যবাদ(138)

প্রকাশিত হয়েছে 05-Jul-2016
লিখেছেন : Md Deloar hosen

Thank you for this

[সংগ্রহ কারক: আমারসাজ.কম]

ধন্যবাদ(100)



Site: <.>.>>..1
একটি কমেন্ট করুন
Name:

Text:

div class=
64
Home
Youtube Downloader
Back
AmarShaj.Com 2015
All Rights Reserved
সংগ্রহ কারক : All Member
Powered By BDLove24.Com
Hindi Song
Download Android Game for Free
UC Browser  Phone  Android Games  more